Skip to content

Banglasahitya.net

Horizontal Ticker
বাঙালির গ্রন্থাগারে আপনাদের সকলকে জানাই স্বাগত
"আসুন শুরু করি সবাই মিলে একসাথে লেখা, যাতে সবার মনের মাঝে একটা নতুন দাগ কেটে যায় আজকের বাংলা"
কোনো লেখক বা লেখিকা যদি তাদের লেখা কোন গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ বা উপন্যাস আমাদের এই ওয়েবসাইট-এ আপলোড করতে চান তাহলে আমাদের মেইল করুন - banglasahitya10@gmail.com or, contact@banglasahitya.net অথবা সরাসরি আপনার লেখা আপলোড করার জন্য ওয়েবসাইটের "যোগাযোগ" পেজ টি ওপেন করুন।
Home » আবুল মনসুর আহমেদ || Sankar Brahma

আবুল মনসুর আহমেদ || Sankar Brahma

অডিও হিসাবে শুনুন

আবুল মনসুর আহমেদ (বাংলাদেশের সাহিত্যিক, রাজনীতিবিদ এবং সাংবাদিক)

তিনি ছিলেন একাধারে রাজনীতিবিদ, আইনজ্ঞ ও সাংবাদিক এবং বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্রূপাত্মক রচয়িতা। ১৯৪৬-এ অবিভক্ত বাংলার কলকাতা থেকে প্রকাশিত ইত্তেহাদ-এর সম্পাদক এবং তৎকালীন কৃষক ও নবযুগ পত্রিকায়ও কাজ করেন তিনি। ‘আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর (১৯৬৯)’ তার বিখ্যাত আত্মজীবনীমূলক রচনা।

তিনি ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলার ধানিখোলা গ্রামে ১৮৯৮ সালের ৩রা সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম আব্দুর রহিম ফরাজী, মাতার নাম মীর জাহান খাতুন।
তিনি ১৯১৭ সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষা পাশ করেন এবং ১৯১৯ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেন। তিনি কলকাতার রিপন কলেজ থেকে আইন বিষয়ে পাশ করেন। এই সময়টা ছিল খিলাফত আন্দোলন ও অসহযোগ আন্দোলনের। তিনি নয় বছর ময়মনসিংহে আইন চর্চা করেন। তারপর কলকাতায় পেশাদার সাংবাদিক হিসাবে কাজ করেন। তিনি বিশিষ্ট আইনজীবীও ছিলেন। গোঁড়া মোহাম্মদী পরিবারের সন্তান ছিলেন আবুল মনসুর আহমদ। লাল তুর্কী টুপি মাথায় মোহাম্মদীর পক্ষে তর্কেও যেতেন। ঘটনাক্রমে একদিন তিনি ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের হেড মৌলভী আলী নেওয়াজ ও শিক্ষক মৌলভী শেখ আবদুল মজিদের সংস্পর্শে আসেন। এঁদের সাহচর্যে আবুল মনসুর প্রথম উদারতার পাঠ গ্রহণ করেন। তার এই উদারতার বহিঃপ্রকাশ ঘটে অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের প্রতি। ১৯১৮-১৯ সাল থেকে তিনি কবর পূজা এবং পীর পূজাসহ হিন্দু-মুসলিম সমাজের সকল কুসংস্কারের সরাসরি বিরোধিতা শুরু করেন (আত্মকথা, পৃ ১৮০-৮১)।

তিনি সাংবাদিক হিসেবে নানান সংবাদপত্রে কাজ করেছেন, যেমন : ইত্তেহাদ, সুলতান, মোহাম্মদী, নাভায়ু। ১৯৪৬-এ অবিভক্ত বাংলার কলকাতা থেকে প্রকাশিত ইত্তেহাদ-এর সম্পাদক এবং তৎকালীন কৃষক ও নবযুগ পত্রিকায়ও কাজ করেন তিনি।
আবুল মনসুর আহমদ চল্লিশ, পঞ্চাশ ও ষাটের দশকজুড়ে ধর্মনিরপেক্ষতার পক্ষে অবিরাম প্রচারণা চালিয়েছিলেন। ইত্তেহাদ-এর সম্পাদক হিসেবে তিনি ভাষা আন্দোলনে অবদান রাখেন।

আবুল মনসুর আহমেদ নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর কংগ্রেস আন্দোলনসমূহের সাথে যুক্ত ছিলেন। ১৯৩৭ সালের নির্বাচনের পরে তিনি বাংলার মুসলীম লীগের সাথে সম্পৃক্ত হন এবং ১৯৪০ সাল থেকে পাকিস্তানের আন্দোলনসমূহের সাথে যুক্ত হন। তিনি যুক্তফ্রন্ট এর নির্বাচনী কর্মসূচি ২১-দফার অন্যতম প্রণেতা ছিলেন। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের মনোনয়নে পূর্ববঙ্গ পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৫৪ সালে তিনি ফজলুল হক মন্ত্রীসভায় স্বাস্থ্য মন্ত্রী নিযুক্ত হন। আবুল মনসুর আহমেদ ১৯৫৫ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে পূর্ববঙ্গ পরিষদের সদস্যদের ভোটে পাকিস্তান গণপরিষদ এর সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৫৬ সালে পূর্ব পাকিস্তানের যুক্তফ্রন্ট সরকারের শিক্ষামন্ত্রী এবং ১৯৫৬-৫৭ সালে বণিজ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৫৮ সালে আইয়ুব খান কর্তৃক সামরিক শাসন জারি হওয়ার পর তিনি কারারুদ্ধ হন এবং ১৯৬২ সালে মুক্তি পান। পূর্ববাংলার মঙ্গলের জন্য তিনি নানা পদক্ষেপ নিয়েছিলেন, বিশেষ করে শিল্পায়নে তিনি বিশেষ অবদান রাখেন। আওয়ামী মুসলিম লীগ (পরবর্তীতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ) এর প্রতিষ্ঠাতা-নেতা ছিলেন। ১৯৫৩-১৯৫৮ সাল পর্যন্ত তিনি আওয়ামী লীগ এর সহ-সভাপতি ছিলেন।

১৯৭৯ সালে তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলে যোগ দিয়ে দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

আবুল মনসুর আহমেদ একজন শক্তিমান লেখক ছিলেন। তিনি ব্যঙ্গাত্মক রচনায় বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। ‘আয়না’ ও ‘ফুড কনফারেন্স’ গল্পগ্রন্থদ্বয়ে তিনি মুসলিম সমাজের গোঁড়ামি, ধর্মান্ধতা, ভণ্ডামিসহ নানা কুসংস্কারের ব্যঙ্গ করেছেন তীক্ষ্ণ দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে।

তাঁর গ্রন্থসমূহ

আয়না (১৯৩৬-১৯৩৭ সাল)
ফুড কনফারেন্স (১৯৪৪ সাল)
গালিভারের সফরনামা

স্মৃতিকথা

আত্মকথা (১৯৭৮ সালে, আত্মজীবনী)
আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর (১৯৬৯ সাল)
শেরে বাংলা হইতে বঙ্গবন্ধু (১৯৭২ সাল)

অন্যান্য রচনা

সত্য মিথ্যা (১৯৫৩ সাল)
জীবনক্ষুধা (১৯৫৫ সাল)
আবে হায়াত (১৯৬৮ সাল)
হুযুর কেবলা (১৯৩৫ সাল)
বাংলাদেশের কালচার (১৯৬৬ সাল)
আসমানী পর্দা (১৯৬৪ সাল)

বাংলা একাডেমি সম্প্রতি আবুল মনসুর আহমদ রচনাসমগ্র নিয়ে তিন খণ্ড প্রকাশনা করেছে। আরও তিন খণ্ড প্রকাশিতব্য রয়েছে ( জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের সম্পাদনায় ও কবি ও গবেষক ইমরান মাহফুজের সহযোগিতায়)।

সাহিত্য চর্চায় অসাধারণ অবদানের জন্য ১৯৭৯ সালে দেশের “সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার” হিসাবে পরিচিত “স্বাধীনতা পুরস্কার” প্রদান করা হয় তাকে। এছাড়াও তিনি “বাংলা একাডেমী পুরস্কার” (১৯৬০ সাল) ও নাসিরুদ্দীন স্বর্ণপদকে ভূষিত হয়েছেন।

তাঁকে নিয়ে লেখা গ্রন্থ

আবুল মনসুর আহমদ জীবনী (বাংলা একাডেমী), ডঃ নুরুল আমিন
আবুল মনসুর আহমদের চিন্তাধারা (বাংলা একাডেমী) ডঃ মিজানুর রহমান
আবুল মনসুর আহমদ স্মারকগ্রন্থ (প্রথমা ২০১৫ সাল) ইমরান মাহফুজ
জীবনশিল্পি আবুল মনসুর আহমদ ( স্মৃতি পরিষদ ২০১৬ সাল) ইমরান মাহফুজ
আবুল মনসুর আহমদ সংখ্যা (২০০৯ সাল) সম্পাদক ইফফাত আরা
দুর্লভ কথক কালের ধ্বনি’র আবুল মনসুর আহমদ সংখ্যা (২০১৫ সাল) প্রধান সম্পাদক আশিক রেজা ও সম্পাদক ইমরান মাহফুজ।

আবুল মনসুর আহমেদ ১৯৭৯ সালের ১৮ মার্চ ঢাকায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

————————————————————–
[ সংগৃহীত ও সম্পাদিত। তথ্যসূত্র – উইকিপিডিয়া]

“আবুল মনসুর আহমেদ : যে কারণে আলোচিত”। জননেতা.কম। সংগ্রহের তারিখ ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৪ সাল।

“আবুল মনসুর আহমেদ”। প্রিয়.কম। ১৮ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ সাল।

ইমরান, মাহফুজ (২০১৮-০৯-০৩)। “আবুল মনসুর আহমদের আয়না ও তার প্রাসঙ্গিকতা”। www.thedailystar.net। ১৮ই এপ্রিল ২০২০ সালে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ০৯ই ডিসেম্বর ২০১৮ সাল।

“২য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা” (PDF)। জাতীয় সংসদ। বাংলাদেশ সরকার। ৪ঠা সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা।
সেলিনা হোসেন ও নুরুল ইসলাম সম্পাদিত; বাংলা একাডেমী চরিতাভিধান; ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৭ সালে পৃষ্ঠা- ৫৯।

সানজিদা খান (২০১২ সালে)। “জাতীয় পুরস্কার”। ইসলাম, সিরাজুল; মিয়া, সাজাহান; খানম, মাহফুজা; আহমেদ, সাব্বীর। বাংলাপিডিয়া: বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্বকোষ (২য় সংস্করণ)। ঢাকা, বাংলাদেশ: বাংলাপিডিয়া ট্রাস্ট, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। আইএসবিএন 9843205901। ও এল 30677644M। ওসিএলসি 883871743।

“স্বাধীনতা পদকের অর্থমূল্য বাড়ছে”। কালেরকন্ঠ অনলাইন। ২রা মার্চ ২০১৬ সাল। সংগ্রহের তারিখ ১০ই ডিসেম্বর ২০১৭ সাল।

“এবার স্বাধীনতা পদক পেলেন ১৬ ব্যক্তি ও সংস্থা”। এনটিভি অনলাইন। ২৪শে মার্চ ২০১৬ সাল। ১লা ডিসেম্বর ২০১৭ সালে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ই ডিসেম্বর ২০১৭ সাল।

“স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের তালিকা”। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। ১লা ডিসেম্বর ২০১৭ সালে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ই ডিসেম্বর ২০১৭ সাল।

“‘কালের ধ্বনি’র আবুল মনসুর আহমদ সংখ্যা | ইত্তেফাক সাময়িকী | The Daily Ittefaq”। archive1.ittefaq.com.bd। – ২৪শে এপ্রিল ২০২০ সালে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ – ০৫ই নভেম্বর ২০২১ সালে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *